সোমবার, ২০ নভেম্বর ২০১৭

English Version

দেশের অধিকাংশ মানুষ স্বাস্থ্য সচেতন না-

No icon তারকা স্বাস্থ্যকথা

ডা. সৈয়দ মোদাচ্ছের আলী-

চক্ষু বিশেষজ্ঞ। চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ মেডিক্যাল রিসার্চ কাউন্সিল ও প্রধানমন্ত্রীর সাবেক স্বাস্থ্য উপদেষ্টা

নিজস্ব প্রতিবেদক: অসাধারণ বিনয়ী। মুগ্ধ হবার মতোন। শিক্ষার আলোয় এমন উদ্ভাসিত মানুষ, বাংলাদেশে বিরল। আঞ্চলিক উচ্চারণেও যে এমন সৌন্দর্য খুঁজে পাওয়া যায়, তাঁর কথা না শুনলে টের পাওয়া যায় না।

অসম্ভব সহজ-সরল ভঙ্গীতে বলেন। অকৃত্রিমভাবে। হৃদয় হরণ করা এই ব্যক্তিত্বের কাছে আমরা হেরে যাই, হারিয়ে যাই- বারবার। উপলদ্ধি হয়, একেই বুঝি বলে, পরিপূর্ণ জ্ঞানের আলোকচ্ছটা-যা তিনি বিলাতে চান, অকৃত্রিমভাবে, সবার মাঝে। এ যেন অতি সাধারণ মানুষের অসাধারণ হয়ে ওঠার এক অনন্য স্বপ্নগল্প।

প্রফেসর ডা. সৈয়দ মোদাচ্ছের আলী। দেশের প্রখ্যাত চক্ষু বিশেষজ্ঞ। অফথালমিক সার্জন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাবেক স্বাস্থ্য, জনকল্যাণ ও সমাজকল্যাণ উপদেষ্টা। বাংলাদেশ মেডিক্যাল রিসার্চ কাউন্সিলের চেয়ারম্যান।

তখনও সন্ধ্যা নামেনি। অফিস ফাঁকা। তিনি নেই। নির্ধারিত সময়ের আগেই আমরা হাজির। তিনি এলেন। ধানমন্ডির চেম্বারে। স্বাস্থ্য বিষয়ে কথা বললেন। আমারহেলথ ডটকম-এর সঙ্গে।। দীর্ঘক্ষণ। স্বাস্থ্য এবং অন্যান্য বিষয়ে সেই দীর্ঘ কথোপকথনের শব্দমধুর উচ্চারণ নিয়েই আজকের লেখা। আজ প্রকাশিত হলো সাক্ষাতকারের ১ম পর্ব ।

সাক্ষাতকার: তাপস রায়হান, ছবি: আওয়াল হোসেন

আমারহেলথ ডটকম: আপনি ছাত্রজীবন থেকেই রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। পড়তেন মেডিক্যালে। পড়াশোনায় সমস্যা হতো না?

সৈয়দ মোদাচ্ছের আলী: আমিতো আগে থেকেই ছাত্রলীগ করতাম। যে কারণে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে পড়ার সময় ছাত্রলীগই করতাম। খাটতে হতো। অনেক। রাত দশটা পর্যন্ত পোস্টার লাগাতাম। এরপর পড়তে বসতাম। যদিও টাফ ছিল-তবু পসিবল।

আমারহেলথ ডটকম: ঠিক, কী ধরণের জনকল্যাণের কথা চিন্তা করে রাজনীতি করতেন?

সৈয়দ মোদাচ্ছের আলী: সত্যিকারভাবে বলতে কী, আইজক্যা সত্যি একটা কথা বলি- জনকল্যাণের চেয়েও ছাত্র নেতাদের প্রতি আমাদের একটা আকর্ষণ ছিল। আমাদের সময়- মোয়াজ্জেম ভাই ছিলেন সভাপতি আর শেখ ফজলুল হক মণি ভাই ছিলেন সাধারণ সম্পাদক। আর পিছনে ছিলেন- মুজিব ভাই। তিনি যা বলতেন, আমরা তাই-ই বাস্তবায়ন করতাম। নিরপেক্ষভাবে বললে বলবো- মুজিব ভাইয়ের অপার ভালবাসা আর নেতাদের প্রভাবে নীতিতে অবিচল থাকাটাই, আমাদের রাজনীতির মূল উদ্দেশ্য ছিল।

আমারহেলথ ডটকম: দেশের মানুষ কি সঠিক স্বাস্থ্যসেবা পাচ্ছেন? একজন নাগরিক হিসাবে বিষয়টা আপনি কীভাবে মূল্যায়ন করবেন?

সৈয়দ মোদাচ্ছের আলী: নিরপেক্ষভাবে যদি মূল্যায়ন করি, তাহলে বলবো- দেশের মানুষ স্বাস্থ্যসেবা পাচ্ছে না। যতটুকু করা সম্ভব, তা হচ্ছে না। বিভিন্ন কারণে। আমাদের ক্ষমতা অনেক। কিন্তু মূলত: চিকিৎসকদের কারণেই তা ব্যাহত হচ্ছে। এটা হচ্ছে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ কারণ। অধিকাংশ ক্ষেত্রে আমরা রোগীদের সঙ্গে কমিউনিকেট করি না। ফলে সমস্যাটা থেকেই যাচ্ছে। মানুষের কথাটা আমরা বেমালুম ভুলে যাই।

আর আমাদের মেডিক্যাল কলেজের ভর্তি সিষ্টেমটাইতো ভয়ানক ভুলে ভরা-অসম্পূর্ণ। মেধাবী ছাত্ররাই ভাল ডাক্তার হবেন-এটা্ইতো সবচেয়ে ভুল ধার‌ণা। ডাক্তারি পেশা আর মেডিক্যাল সাইন্টিস্টতো এক কথা না। যারা রিসার্চ করবে, তারাতো আলাদা। চিকিৎসকরা রিসার্চ করেও না, বুঝেও না।

আমি বর্তমানে বাংলাদেশ মেডিক্যাল রিসার্চ কাউন্সিলের চেয়ারম্যান। দায়িত্ব নিয়েই কথাটা বলতেছি। সঠিকভাবে যে ধরণের লোক প্রয়োজন, তাদের কোনভাবেই প্রাইভেট প্রাকটিস করা যাবে না। আবার আমাদের আর্থ সামাজিক যে অবস্থা, তাতে এটা না করলে তো, বউ চলে যাবে!

আমারহেলথ ডটকম: তাহলে সমাধান কী?

সৈয়দ মোদাচ্ছের আলী: এইটা সমাধানের পথ হইলো- চিকিৎসকদের মানসিকভাবে গড়ে তুলতে হবে। এর কোনো বিকল্প নাই। সব প্রাকটিস কেন্দ্রিক। এভাবে তো হয় না।

আমারহেলথ ডটকম: আমরা কি স্বাস্থ্য সচেতন?

সৈয়দ মোদাচ্ছের আলী: এই সচেতন করার মূল দায়িত্ব কার? আমি ইন জেনারেল বলি- দেশের অধিকাংশ মানুষ স্বাস্থ্য সচেতন না। এমনকি চিকিৎসকরাও না। যদি তাই হইতো, তাইলে চিকিৎসকরা ধূমপান করেন ক্যান?

আমারহেলথ ডটকম: আমাদের সমাজ ও পরিবেশে  ভয়ঙ্কর দূষণ। এ থেকে কি মুক্তি নেই?

সৈয়দ মোদাচ্ছের আলী: আছে। অবশ্যই। এখন কিন্তু আগের চেয়ে অনেক কমছে। মিডিয়া এই ব্যাপারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। (অসমাপ্ত)

সর্বাধিক পঠিত খবর


নাকের পলিপ হওয়ার কারণ ও চিকিৎসা


বাসি রুটির এতো গুণ ?

কতটুকু ভাত খেলে মোটা হবেন না?




শীতে দই খাওয়ার উপকারিতা

গ্যাস সমস্যায় যেসব খাওয়া নিষেধ