মঙ্গলবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৮

English Version

প্রতিটি বিভাগে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হবে: প্রধানমন্ত্রী

No icon সারা দেশের খবর

স্বাস্থ্য ডেস্ক: ৮ অক্টোবর’১৮: বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) আয়োজিত ‘চিকিৎসক সম্মিলন-২০১৮’ অনুষ্ঠানে রবিবার বিকালে গণভবনে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জনগণের সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেওয়ার জন্য আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা করেছি। ক্ষমতাকে আমরা হাতে নিয়েছি জনগণের সেবা করার দায়িত্ব হিসেবে। মানুষের সেবার মতো মহৎ কাজ আর হতে পারে না।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, চিকিৎসকদের দাবি করার আগেই কিন্তু অনেক কাজ আমরা আপনাদের জন্য করে দিয়েছি। চিকিৎসা শিক্ষাটা হচ্ছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কাজেই বিশেষায়িত শিক্ষা বহুমুখী চিকিৎসা সেভাবে নার্সিং ট্রেনিং এগুলো আমাদের জন্য প্রয়োজন। কারণ আমাদের যারা বিত্তশালী সম্পদশালী। তারা তো একটু হাঁচি-কাশি হলেও বিদেশে চলে যেতে পারে চিকিৎসার জন্য। কিন্তু সাধারণ মানুষ তো সেই সুযোগ পায় না। বড়লোক বিত্তবানরা যাক তাতে আমাদের সিট খালি থাকবে, সাধারণ মানুষ চান্স পাবে। আমার আপত্তি নেই। কিন্তু আমার দেশের মানুষ যারা মধ্যবিত্ত, নিম্নবিত্ত যাদের বিদেশ যাওয়ার মতো সামার্থ নেই, তাদের চিকিৎসা সেবাটা নিশ্চিত করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, এত চিকিৎসক নিয়োগ দিচ্ছি। ডাক্তারদের জন্য সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছি, তারপরও উপজেলায় ডাক্তার পাই না। তারা উপজেলার হাসপাতালে থাকতে চান না। যে উপজেলায় ১০ জন ডাক্তার থাকার কথা সেখানে ডাক্তার পাওয়া যায় চার-পাঁচজন। এটা অত্যন্ত দুঃখজনক। সেখানে যদি ডাক্তার না থাকে, মানুষ তাহলে সেবা পাবে কীভাবে? উপজেলাসহ তৃণমূল স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রে ডাক্তার থাকার তাগিদ দিয়ে তিনি বলেন, শুধু রাজধানী নয়, সারাদেশের মানুষের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, এ দেশে কোনো মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় ছিল না। আমরাই প্রথম মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করি। এছাড়া আরো তিনটি মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে। আবার যদি ক্ষমতায় আসতে পারি তাহলে প্রতিটি বিভাগেই একটি করে মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় করে দেব।

তিনি বলেন, গত ১০ বছরে চিকিৎসা সেবার অনেক উন্নতি হয়েছে। উপজেলায় যেসব হাসপাতালে ৩০ বেড ছিল সেগুলো ৫০ থেকে ১০০ বেডে উন্নীত করা হয়েছে। আগে ডিপ্লোমা পাস করে নার্স আসতো এখন গ্র্যাজুয়েট নার্স আসছে। নার্সদের দ্বিতীয় শ্রেণির পদমর্যাদা দিয়েছি।

এছাড়া প্রাইভেট হাসপাতাল ও মেডিক্যাল কলজেগুলো যাতে ভালোভাবে চলতে পারে, এ কারণে মেডিক্যাল ইকুইবম্যান্ট ও যন্ত্রপাতির ওপর ট্যাক্স প্রত্যাহার করে নেয়া হয়েছে। মানবদেহের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সংযোজন আইন করে দিয়েছি। শেখ হাসিনা বলেন, পদ আমরা সৃষ্টি করে দিয়েছি, কিন্তু সেখানে আমরা ডাক্তার পাই না।

অনুষ্ঠানে বিএমএ’র পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীকে ক্রেস্ট উপহার দেওয়া হয়। সম্মেলনের শুরুতে জাতীয় ও সাংগঠনিক পতাকা উত্তোলন করা হয়। প্রায় আট বছর পর গণভবনে চিকিৎসকদের এ মহাসম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে রাজধানীসহ সারাদেশের বিএমএ’র সদস্যরা যোগদান করেন। বিএমএ সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিনের সভাপতিত্বে উপস্থিত অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- কনফেডারেশন ফর মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন ইন এশিয়া অ্যান্ড ওশেনিয়া (সিএমএএও)-এর সভাপতি রাভিন্দ্রান আর নাইডু, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালিক, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া, বিএমএ’র মহাসচিব ডা. এহতেশামুল হক চৌধুরী।

সর্বাধিক পঠিত খবর

পিসিওএস ও বন্ধ্যাত্ব

মানসিক চাপ দূর হবে এক টুকরো বরফে!


রক্তচোষা জোঁকের লালায় ক্যানসার মুক্তি!




এবার ওষুধ ছাড়াই দূর হবে মাইগ্রেন !


মনের রোগে দেশের দুই কোটি মানুষ: জরিপ