সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮

English Version

ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় অঙ্গে মারাত্মক রোগ এমনকি মৃত্যুও হতে পারে, সেমিনারে বক্তারা

No icon সারা দেশের খবর

স্বাস্থ্য ডেস্ক: ৬ নভেম্বর’১৮: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ ডা. মিলন হলে একাডেমী অফ ডার্মাটোলজী বাংলাদেশের উদ্যোগে মঙ্গলবার এক বৈজ্ঞানিক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে বৈজ্ঞানিক প্রবন্ধ পাঠ করেন তিনজন দেশ বিদেশের স্বনামধন্য চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের চর্ম রোগ বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডা. রাশেদ মোহাম্মদ খান তাঁর প্রবন্ধে পেম্ফিগাস ভালগারিস রোগের ব্যবস্থপনার জটিলতা নিয়ে মূল্যবান বক্তব্য রাখেন।

তারপর ব্রিগেডিয়ার ডা. মোঃ আব্দুল লতিফ খান তাঁর মূল্যবান প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। সর্বশেষ বক্তা ছিলেন উপমহাদেশের স্বনামধন্য চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ ও গবেষক, অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সাইন্স দিল্লী থেকে আগত অধ্যাপক ডা. এম রামাম। ত্বকের উপর ওষুধের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া বিষয়ে তার বক্তব্য উপস্থিত বিজ্ঞ শ্রোতামমন্ডলীকে বিমোহিত করে।

বৈজ্ঞানিক প্রবন্ধ পাঠের পর পর শুরু হয় প্রশ্নোত্তর ও মতবিনিময় পর্ব। বিশেষজ্ঞ প্যানেলে উপস্থিত দেশের বরেণ্য, প্রখ্যাত চর্মরোগ বিশেষজ্ঞবৃন্দ তাদের মূল্যবান অভিজ্ঞতা বিনিময় করেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী জনাব রাশেদ খান মেনন, এমপি। বিশেষ অতিথি ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বিশিষ্ট নিউরোসার্জন অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া ও বাংলাদেশ মেডিক্যাল এসোসিয়েশন (বিএমএ) এর সভাপতি, ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন।

অনুষ্ঠানে ধন্যবাদ প্রস্তাব উপস্থাপন করেন একাডেমী অফ ডার্মাটোলজী বাংলাদেশর সম্মানিত সাধারণ সম্পাদক, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের চর্ম ও যৌনরোগ বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মোঃ সাইফুল ইসলাম ভূঁইয়া। দেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে আগত কয়েকশত চর্মরোগ বিশেষজ্ঞদের সরব উপস্থিতি অনুষ্ঠানটিকে সফল করে তোলে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য, বিশিষ্ট নিউরোসার্জন অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া তাঁর বক্তব্যে ওষুধ ব্যবহারের ক্ষেত্রে জনসচেতনতা বৃদ্ধি করা অত্যন্ত জরুরি বলে উল্লেখ করেন।

সভাপতির বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য, চর্ম ও যৌন রোগ বিভাগের চেয়ারম্যান এবং একাডেমী অফ ডার্মাটোলজি বাংলাদেশের সভাপতি অধ্যাপক ডা. মোঃ শহীদুল্লাহ সিকদার বলেন, আধুনিক চিকিৎসা ব্যবস্থায় ওষুধপত্র এবং প্রযুক্তির নব নব আবিষ্কারের ফলে অনেক জটিল কার্যকরী চিকিৎসা করা সম্ভব হচ্ছে। কিন্তু পাশাপাশি ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও মারাত্মকভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এটি শুধু চামড়ার চুলকানী, ছোট ছোট দানাদার ফুসকুরী পরা, লাল হয়ে যাওয়া বা দাগ পড়া নয়, সমস্ত শরীরের চামড়া উপরিভাগ হতে একেবারে খসে পড়া থেকে আরম্ভ করে অনেক জটিল স্বাস্থ্য সমস্যা তৈরি করে।

সর্বাধিক পঠিত খবর

কিডনি ইনফেকশন প্রতিরোধের উপায়

বুদ্ধিমান সন্তান চেনার উপায়?

মেদ কমান, সুস্থ থাকুন


থাইরয়েডের সমস্যায় যে খাবার খাবেন




চুলের বৃদ্ধি বাড়ায় আদা ও রসুন

শীতে শ্বাসকষ্ট এড়াতে যা যা করবেন