রবিবার, ৩১ মে ২০২০

English Version

বিপাকে আম চাষীরা, ২৫ মে’র আগে আম বাজারজাত নিষিদ্ধ

No icon সারা দেশের খবর

স্বাস্থ্য ডেস্ক — ২২ মে, ২০১৬: সবেমাত্র রাজশাহীর বাজারে উঠতে শুরু করেছে গোপালভোগসহ দেশি গুটি জাতের নাম। কিন্তু আগামী ২৫ মের আগে কোন আমই বাজারে নামানো যাবেনা।

গতকাল শনিবার বিকেলে এমন ঘোষণা এসেছে রাজশাহী জেলা প্রশাসনের তরফ থেকে। এর আগে আম বিক্রির উদ্দেশ্যে নামানো হলেই কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এমন ঘোষণায় বিপাকে পড়েছে রাজশাহীর আম চাষীরা। টানা লোকসানের বৃত্তেই ঘুরপাক খেতে হবে তাদের।

এর আগে শনিবার বিকেলে আম উৎপাদনকারী অঞ্চলের জেলা প্রশাসক ও সংশ্লিষ্টদের নিয়ে ভিডিও কনফারেন্স করা হয় প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিবের কার্যালয় থেকে। সেখান থেকেই আম বাজারজাতের তারিখ নির্ধারণ করা হয়। এসময় প্রশাসনের কর্মকর্তা, বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা, আমচাষী, ব্যবসায়ী ও আম পরিবহনের সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।

ওই ঘোষণা অনুযায়ী, ২৫ মের আগে গোপালভোগসহ কোনো প্রকার গুটি আম বাজারজাত করা যাবে না। বিষমুক্ত আম সংগ্রহ, সংরক্ষণ ও পরিবহনের লক্ষ্যে দেশে  শনিবার বিকেলে এই ভিডিও কনফারেন্সের আয়োজন করা হয়। রাজশাহী জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

সূত্রমতে, ক্ষীরসাপাত বা হিমসাগর ও লক্ষণভোগ আম ১ জুন, ল্যাংড়া ও বোম্বাই ১০ জুন, ফজলি ২৫ জুন, আম্রপালি ১ জুলাই এবং আশ্বিনা ১৫ জুলাই থেকে বাজারজাত করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

বাজার তদারকির মাধ্যমে এ বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

সভায় কর্মকর্তারা আইনি পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন। আর আমচাষীরা ব্যাগিং করার জন্য ব্যাগের দাম কমানোর দাবি জানান। সেই সঙ্গে অনুষ্ঠানে কারবাইড, ফরমালিন ও ক্ষতিকারক রাসায়নিক আমদানির ব্যাপারে কড়াকড়ি আরোপ করার ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়।

এ তথ্য নিশ্চিত করে রাজশাহীর জেলা প্রশাসক কাজী আশরাফ উদ্দীন সাংবাদিকদের বলেন, আম সংরক্ষণ ও পাকানোতে রাসায়নিক দ্রব্যের ব্যবহার বন্ধে তারা সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাবেন। এর আগে এ বিষয়ে আম চাষী, আড়তদার ও ব্যবসায়িদের নিয়ে দফায় দফায় তারা সভা করেছেন। এসব সভায় তাদের সচেতনও করা হয়। নির্দেশ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে আইনত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এদিকে, আম বাজারজাত করার সময় বেধে দেয়ায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন চাষীরা। তাদের ভাষ্য, এখন বাজারে উঠতে শুরু করেছে গোপালভোগ। দেশি গুটিগুলোও উঠেছে। কিন্তু ২৫ মের আগে এসব আম বাজারজাত না করা গেলে ব্যাপক আর্থিক লোকসান হবে তাদের। সরকারি এ সিদ্ধান্ত আম চাষিদের জন্য কাল হলো। এখন পাকা আম না পারবেন নামাতে, না পারবেন রাখতে। গত বছরের মত এবারো লোকসান গুনতে হবে তাদের। পথে বসতে হবে অনেককেই।

 রাজশাহী ফল গবেষণা কেন্দ্র জানিয়েছে, দেশি গুটি জাতের নাম ও গোবিন্দভোগ পাকে ২৫ মে থেকে। এরপর গোপালভোগ পহেলা জুন এবং ক্ষীরসাপাত বা হিমসাগর ও লক্ষণভোগ আম পাকে ১২ জুন। এছাড়া ল্যাংড়া ও বোম্বাই ১৫ জুন, ফজলি ৭ জুলাই জুন, আম্রপালি ১ জুলাই এবং আশ্বিনা ১৫ জুলাই থেকে পাকে। তবে এবার রাজশাহী অঞ্চলের আবহাওয়া চরম থাকায় নির্ধারিত সময়ের আগেভাগেই পাকতে শুরু করেছে আম।

 

সর্বাধিক পঠিত খবর




করোনার বিরুদ্ধে একা লড়াই