শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০

English Version

দেশে গর্ভবতী মায়েদের ২০ ভাগই একলামশিয়া রোগে মারা যায়

No icon আমার ডাক্তার

আকাশের মত বিশাল, উষ্ণতার একমাত্র আশ্রয়। শত যন্ত্রণার মাঝে সন্তানকে জড়িয়ে রাখা মানুষকে কি আর শব্দে ব্যাখা করা যায়! সন্তানের জন্ম দিতে গিয়ে একলামশিয়া বা খিচুনি রোগের কারণে, শত আকাঙ্খার সন্তানের মুখটাও দেখতে পারেন না অনেক মা। তাই গর্ভাবস্থায় উচ্চ রক্তচাপ হেলাফেলা না করার পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা।দশ মাস দশদিনের গর্ভধারণ, অসহ্য প্রসব বেদনা, অবশেষে কান্নার সাথে শিশুর প্রথম নিঃশ্বাস। এভাবেই পরিপূর্ণতা পায় মায়ের জীবন।কিন্তু সব মায়ের জীবনই কি এমন পূর্ণতা পায় শিশুর আগমনী বার্তায়? এই যেমন সাজিয়া। প্রায় ১৫ দিন ধরে একলামশিয়ায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে। যেখানে তার নিজের জীবনই হুমকির মুখে, সেখানেও তার প্রতীক্ষার প্রহর একটি সুস্থ সন্তানের।

সাজিয়া বলেন, প্রতিটা মূহুর্তই প্রহর গুনছি তাকে সুস্থভাবে প্রথিবীতে আনার জন্য।এমন প্রতীক্ষায় প্রহর গুনেছেন আয়েশাও। তবে সন্তানের কপালজুড়ে চাঁদের টিপ পরানো হয়নি তার।আয়েশা বলেন, এত কষ্ট করলাম তবুও পারলাম না তাকে সুস্থভাবে আমার বুকে নিতে। এই কষ্টের কথা আর কি বলা যায়তবে জেবুন্নেসার গল্প কিছুটা ভিন্ন। কোলজুড়ে দুই জমজ শিশুর উষ্ণতা ভুলিয়ে দিয়েছে তার সব কষ্ট।সন্তান জন্ম দিতে গিয়ে সাজিয়া, আয়েশা কিংবা জেবুন্নেসার মতো অনেক মাই একলামশিয়ায় আক্রান্ত হন। এই রোগে, গর্ভবতী মায়েদের রক্তচাপ অনেক বেড়ে যায়। যার ফলে শুরু হয় খিচুনী। কিডনী অকেজো হবারও শঙ্কা দেখা দেয়। তাছাড়া হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও থাকে। তাই গর্ভাবস্থায় উচ্চরক্তচাপ হেলাফেলা না করার পরামর্শ চিকিৎসকদের।

ঢামেকের স্ত্রীরোগ ও প্রসূতি বিদ্যা বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক সালমা রউফ বলেন, এ সময় অনেক সমস্যা দেখা দেয়। যখন তার সমস্যা হতে শুরু করে যেমন-চোখে ঘোলা ঘোলা দেখা, বমি আসা, রাতে ঘুম না হওয়া। এর পরবর্তী ধাপটাই হল খিচুনি। যখন সে সমস্যা অনুভব করতে শুরু করে তখন অনেক দেরি হয়ে যায়। তখন তার খিচুনি প্রতিরোধ করা খুব কঠিন হয়ে যায়। সে যদি নিয়মিত চেকআপে থাকে তাহলেই বুঝা যাবে তা ব্লাড প্রেসার বাড়ছে কিনা।পরিসংখ্যান বলছে, সন্তান জন্ম দিতে গিয়ে দেশে প্রতি এক লাখ মায়ের মধ্যে মৃত্যু হয় ১৭০ জনের যার মধ্যে ২০ ভাগ মৃত্যুর কারণ একলামশিয়া বা খিচুনি রোগ। চিকিৎসকরা মনে করেন, গর্ভকালীন সেবাই হতে পারে এই রোগে মৃত্যু রোধের উপায়।

সর্বাধিক পঠিত খবর





করোনার বিরুদ্ধে একা লড়াই