মঙ্গলবার, ২১ আগস্ট ২০১৮

English Version

সুচিকিৎসায় মৃগী রোগীদের সুস্থ জীবন সম্ভব

No icon অামার ডাক্তার

স্বাস্থ্য ডেস্ক: ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮: মৃগী রোগ যাকে ইংরেজিতে বলা হয় এপিলেপসি। অনেক সময় পথে চলতে চলতে কেউ কেউ খিঁচুনি উঠে রাস্তায় ঘুরে পড়েন। লোকজন ছুটে এসে কেউ নাকের কাছে চামড়াজাতীয় কিছু ধরেন আবার কেউ গোবর বা এ জাতীয় কিছু নিয়ে আসেন। কেউ হয়তো পানি ছিটিয়ে দেন তার মাথা বা শরীরে। এ অবস্থায় দু’চার মিনিট পর যখন লোকটির সংবিত ফিরে আসে তখন ধরে নেয়া হয় চামড়া বা গোবরের ঘ্রাণ অথবা পানির কারণেই ব্যক্তিটি সুস্থ হয়ে উঠেছেন। কিন্তু এমন ধারণা মোটেই ঠিক নয়। এ ধরনের রোগকে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই বলা হয় মৃগী রোগ। এ রোগ যার থাকবে তাকে নিয়ে ব্যস্ত হওয়ার কিছুই নেই। এমনিতেই একটু পর তিনি সুস্থ হয়ে উঠবেন। শুধু তিনি যাতে শক্ত কোনো স্থানে পড়ে না যান অথবা তার শরীরে যেন কোনো আঘাত না লাগে সেটিই দেখতে হবে। খুলনা শহীদ শেখ আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপাতালের উদ্যোগে হাসপাতালের সম্মেলন কক্ষে এপিলেপসি দিবসের আলোচনা সভায় বক্তারা এ কথা বলেন। দিবসটি উপলক্ষে এর আগে হাসপাতাল চত্বরে শোভাযাত্রা বের হয় এবং পরে বহির্বিভাগে রোগী ও তাদের স্বজনদের উদ্দেশে পথসভায়ও চিকিৎসকরা বক্তৃতা করেন।

হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা: বিধানচন্দ্র গোস্বামীর সভাপতিত্বে এবং ডা: মো: কামরুল হকের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় মৃগী রোগ সম্পর্কিত মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন হাসপাতালের নিউরোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ও এশিয়ান এপিলেপসি একাডেমির ফেলো ডা: আবদুস সালাম। অন্যান্যের মধ্যে নিউরোলজি বিশেষজ্ঞ ডা: রুহুল কুদ্দুস বক্তৃতা দেন। হাসপাতাল থেকে এ পর্যন্ত চিকিৎসা নেয়া বেশ কিছু রোগী ও রোগীদের অভিভাবকরাও এ সময় তাদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। বাংলাদেশের মধ্যে একমাত্র খুলনা শহীদ শেখ আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপাতালে এপিলেপসি বিভাগ থাকলেও এ বিভাগের জন্য পৃথক কোনো ওষুধ সরবরাহ না থাকায় অনেক গরিব রোগীকে বাইর থেকে ওষুধ কিনতে হয় উল্লেখ করে রোগীরা এ ব্যাপারে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

সর্বাধিক পঠিত খবর


কিডনী ড্যামেজের লক্ষণ সমূহ

ডিনার দেরিতে করা মানেই ক্যান্সার!



বুকের ব্যথার কারণ সমূহ

জন্ডিসের কারণ ও প্রতিকার


পেটের চর্বি থেকে মুক্তির উপায়