সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮

English Version

শিল্প কারখানার দূষিত বর্জ্য এবং নদী দূষণ নিয়ন্ত্রণে তহবিল

No icon আমার পরিবেশ

স্বাস্থ্য ডেস্ক: ১৫ অক্টোবর’১৮: পরিবেশ অধিদপ্তর এবং এটুআইয়ের যৌথ উদ্যোগে শিল্প কারখানার দূষিত বর্জ্য এবং নদী দূষণ নিয়ন্ত্রণে ‘ইটিপি মনিটরিং সিস্টেম’ ও রিমোট রিভার ওয়াটার মনিটরিং সিস্টেম’ শীর্ষক পরিবেশ চ্যালেঞ্জ ফান্ড উদ্বোধন করা করেছে। ঢাকার আগারগাঁওয়ে অবস্থিত পরিবেশ অধিদপ্তরের সম্মেলন কক্ষে এ তহবিল দুটি উদ্বোধন করেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সচিব আবদুল্লাহ আল মোহসীন চৌধুরী।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন এটুআই প্রোগ্রামের প্রকল্প পরিচালক এবং অতিরিক্ত সচিব মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান পিএএ, পরিবেশ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. সুলতান মাহমুদ এবং পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. এস এম মঞ্জুরুল হান্নান খান।

পরিবেশ চ্যালেঞ্জ ফান্ড একটি প্রতিযোগিতামূলক প্রক্রিয়া, যা জাতীয় পর্যায়ে উদ্ভাবনী আইডিয়ার মাধ্যমে ইটিপি মনিটরিং সিস্টেম অনলাইনে শিল্প কারখানায় দূষিত বর্জ্য নিয়ন্ত্রণ এবং রিমোট রিভার ওয়াটার মনিটরিং সিস্টেম নদীর পানির বিভিন্ন মানের নিয়মিত তথ্য দিয়ে দূষণের হাত থেকে রক্ষা করবে। উদ্ভাবকদের কাছ থেকে আসা আইডিয়া কিংবা প্রজেক্ট বাস্তবায়নে উক্ত চ্যালেঞ্জ ফান্ড প্রদান করা হবে।

এই চ্যালেঞ্জ ফান্ডের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে সমস্যার সুনির্দিষ্ট কারণ খুঁজে বের করা, নাগরিকদের যুক্ত করে সমস্যা সমাধানে প্রচেষ্টা গ্রহণ, উদ্ভাবকদের মধ্যে উদ্ভাবন এবং বিজয়ী হওয়ার সুষ্ঠু প্রতিযোগিতা তৈরি করা, জাতীয় পর্যায়ে উদ্ভাবনকে ত্বরান্বিত করা এবং আর্থিক ও প্রযুক্তিগত সহায়তা প্রদান।

প্রতিটি শিল্প কারখানা থেকে নির্গত বর্জ্যে দূষিত সংক্রামক পদার্থ মিশে থাকে, যা পরিবেশ দূষণের পাশাপাশি জলাধার কিংবা নদীর পানিকে দূষিত করে। এজন্য পরিবেশ ছাড়পত্রের ক্ষেত্রে প্রতিটি শিল্প কারখানায় এফ্লুয়েন্ট ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট (ইটিপি) স্থাপন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এই ইটিপি সিস্টেম সঠিকমাত্রায় মান নিয়ন্ত্রণ করে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সম্পন্ন করতে একটি অনলাইন পদ্ধতি চালুর উদ্দেশ্যে এই চ্যালেঞ্জ ফান্ড ঘোষণা করা হয়েছে।

অন্যদিকে পানির গুনগত মান যাচাই পরিবেশ পর্যবেক্ষণের জন্য অন্যতম একটি বিষয়। যখন পানির মান নষ্ট হতে থাকে তখন শুধু জলজ জীবনের উপরই কেবল প্রভাব পড়ে না, বরং পুরো ইকোসিস্টেমের ওপর প্রভাব বিস্তার করে। পানির গুনগত মান মনিটরিং গবেষকদের ইকোসিস্টেমের ওপর মানব জাতির প্রভাব নির্ণয়ে সহায়তা করে। যা পরিবেশগত ভারসাম্য ও পরামর্শ পরিমাপে কাজে আসে। আর তাই পরিবেশ অধিদপ্তর অনলাইন মনিটরিং এর মাধ্যমে প্রতিনিয়ত নদীর পানির বিভিন্ন স্থিতিমাপ জানতে আগ্রহীরা এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে উদ্ভাবনী আইডিয়া জমা দিতে পারবে। উক্ত চ্যালেঞ্জ ফান্ডে আইডিয়া জমা দেয়ার শেষ তারিখ ১৫ নভেম্বর ২০১৮।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের যুগ্ম সচিব (ই-সার্ভিস পলিসি এন্ড  এ্যাক্ট  অধিশাখা) মোঃ খায়রুল আমীন, এটুআই ইনোভেশন ল্যাব (আইল্যাব) এর জাতীয় পরামর্শক মেজর (অবসরপ্রাপ্ত) মো: জুবায়ের হোসেন এবং পরিবেশ অধিদপ্তর ও এটুআই ইনোভেশন ল্যাবের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাবৃন্দ।

সর্বাধিক পঠিত খবর

কিডনি ইনফেকশন প্রতিরোধের উপায়

বুদ্ধিমান সন্তান চেনার উপায়?

মেদ কমান, সুস্থ থাকুন


থাইরয়েডের সমস্যায় যে খাবার খাবেন




চুলের বৃদ্ধি বাড়ায় আদা ও রসুন

শীতে শ্বাসকষ্ট এড়াতে যা যা করবেন