বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯

English Version

স্বাস্থ্যসেবায় আস্থা ফিরিয়ে আনছেন জাহিদ মালেক ( ভিডিও সহ )

No icon সুসংবাদ

ডা. অপূর্ব পন্ডিত -২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯: দেশের স্বাস্থ্যখাতে সরকারি সেবার বিস্ময়কর সাফল্যের নীরব কারিগর হচ্ছেন বর্তমান স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক এমপি। জাহিদ মালেক এমপি, মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন মাত্র ৮ মাস আগে।

দেশের স্বাস্থ্যখাতে চলমান উন্নয়নকে বেগবান করতে তিনি দায়িত্ব গ্রহণের শুরুতেই সংবাদ সম্মেলন করে পরবর্তী ১০০ দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেন এবং সে অনুযায়ী ১০০ দিন পর পুনরায় আরেকটি সংবাদ সম্মেলন করে তাঁর ১০০ দিনের কর্মকান্ড দেশবাসীর কাছে তুলে ধরেন। দেশের স্বাস্থ্যসেবার মানোন্নয়নে পরবর্তী ৬ মাসের ব্যাপক কর্মসূচি হাতে নেন যা বর্তমানে চলমান রয়েছে।

স্বাস্থ্যসেবা খাতে দূর্নীতি, স্বজনপ্রীতি বা বদলী বাণিজ্য বন্ধ করতে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর নিজ কার্যালয়ে তৈরি করেছেন একটি বিশেষ মনিটরিং সেল। নাম দিয়েছেন মিনিস্টার্স মনিটরিং সেল। এখন পর্যন্ত এই সেলে প্রাপ্ত অভিযোগ নিস্পত্তি ও ডেঙ্গু রোগে পরীক্ষার অতিরিক্ত ফি-এর অর্থ ফেরত প্রদান করা হয়েছে প্রায় ২০০টির মত।

দেশের হাসপাতালগুলোর সেবার মান, পরিচ্ছন্নতা কিংবা সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের অফিস ডিউটি তদারকী করতে স্বাস্থ্যমন্ত্রী করে দিয়েছেন বেশ কয়েকটি ভ্রাম্যমান মনিটরিং টিম। এগুলো থেকে নিয়মিত অভিযোগ আসছে এবং প্রাপ্ত অভিযোগগুলো তিনি নিজে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছেন। মন্ত্রীর এরকম সার্বক্ষণিক নজরদারির কারনেই হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসক উপস্থিতি এখন ৭০ ভাগেরও বেশি হয়েছে। যা আগে ছিল মাত্র ৩০ ভাগের মতো।

ক্যান্সার, সিরোসিস, কিডনী রোগগুলি বর্তমানে দেশে ব্যাপক বৃদ্ধি পাচ্ছে। মানুষ ক্যান্সার রোগের কাছে যেন অসহায়। এই রোগের বেসরকারি চিকিৎসা অত্যন্ত ব্যয়বহুল। স্বাস্থ্যমন্ত্রী এই রোগগুলি চিকিৎসায় দেশব্যাপি ক্যান্সার নিরাময় হাসপাতাল করার বিষয়টি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে তুলে ধরলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, জননেত্রী শেখ হাসিনা এক কথাতেই দেশের সকল বিভাগে ক্যান্সার হাসপাতাল নির্মাণের অনুমোদন করেন। বর্তমানে দেশের সকল বিভাগীয় শহরে বিশেষ সুবিধা সম্পন্ন ও স্বল্প ব্যয় সাপেক্ষে ক্যান্সার হাসপাতাল নির্মাণের কাজ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

সম্প্রতি এক বক্তব্যে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন- ‘আমরা জেনে অবাক হই যে, আমেরিকার মত এতো বড় ও ধনী রাষ্ট্রে গড় আয়ু এখন ৭৮ বছর। আর আমাদের গড় আয়ু ৭২ বছর, মাত্র ৬ বছরের পার্থক্য। আমরা মনে করি, আপনাদের সকলের চেষ্টা ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে স্বাস্থ্য সেবা যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে, খুব শীঘ্রই আমরা গড় আয়ুর দিক থেকে আমেরিকাকে ধরে ফেলবো।’

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশে এখন ডায়রিয়া- কলেরা নেই। বাংলাদেশ এখন পোলিও মুক্ত ও টিটেনাস মুক্ত। টিবি রোগকে আমরা নিয়ন্ত্রণে নিয়ে এসেছি এবং আস্তে আস্তে এটিকে বাংলাদেশ থেকে চিরতরে বিদায় দিতে পারবো। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী আগামী ৫ বছরের মধ্যে প্রতিটি বিভাগে একটি করে ১০০ শয্যা বিশিষ্ট ক্যান্সার হাসপাতাল নির্মাণ করবো। প্রতিটি হাসপাতালে পদ সৃষ্টি করে আমরা জনবল নিয়োগ এবং প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি সরবরাহ করবো। পাশাপাশি প্রতিটি বিভাগীয় শহরে একটি করে কিডনী হাসপাতাল নির্মাণ করবো। শুধু তাই নয়, প্রতিটি জেলা হাসপাতালে ১০ শয্যার একটি করে কিডনী ইউনিট নির্মাণ করবো।’

দেশের সাধারণ মানুষের চিকিৎসার কথা ভেবে সকল হাসপাতালের বেড সংখ্যা দ্বিগুণ করা হয়েছে। দেশের গ্রামাঞ্চলের প্রত্যন্ত এলাকায় ঘরে ঘরে চিকিৎসাসেবা পৌঁছে দিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় দেশে বর্তমানে ১৪ হাজারের বেশি কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মাণ করা হয়েছে। এ সকল ক্লিনিক থেকে এখন প্রত্যন্ত এলাকায় সাধারণ মানুষ হাসিমুখে নিয়মিত স্বাস্থ্যসেবা নিচ্ছেন।

সর্বশেষ ডেঙ্গু রোগের প্রকোপ প্রতিরোধে স্বাস্থ্যমন্ত্রী নানা ধরণের সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন যা সর্বমহলে প্রশংসিত হয়। তিনি ডেঙ্গু রোগীদের চিকিৎসার খোঁজ নিতে প্রতিদিনই বিভিন্ন হাসপাতালে ছুটে গেছেন। ডেঙ্গু পরীক্ষার সকল টেস্ট সরকারি হাসপাতালে ফ্রি ঘোষণা ও বেসরকারি হাসপাতালে সর্বোচ্চ ৫০০ টাকা করে দিয়েছেন। যা পূর্বে ছিল ১৫০০ থেকে ৩০০০ টাকা পর্যন্ত।

উল্লেখ্য, ধনী গরিব নির্বিশেষে সকলের জন্য সরকারি হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগিদের চিকিৎসা শতভাগ ফ্রি করা হয়। ডেঙ্গু রোগ নিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বর্তমানে সারা বছরব্যাপী যে কর্মসূচি হাতে নিয়েছেন তা সর্বমহলে প্রশংসিত হয়েছে।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী জাহিদ মালেকের নেতৃত্বে স্বাস্থ্যসেবার প্রতি মানুষের আস্থা ফিরে আসছে বলছেন বিশ্লেষকরা।

 

 

সর্বাধিক পঠিত খবর

গাড়িতে চড়লে বমি ভাব জেনে নিন সমাধান



লিভার পরিষ্কার রাখে ৩টি খাবার



হঠাৎ বিকট শব্দ, ঝরে গেল সাত শিশুর প্রাণ

আলসারের লক্ষণগুলো জেনে নিন