সোমবার, ১৩ জুলাই ২০২০

English Version

ডব্লিউএইচওর বিশেষ স্বীকৃতি পুরস্কার পেল ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন

No icon সুসংবাদ

ডেস্ক রিপোর্ট, ০১ জুন, ২০২০: বাংলাদেশে তামাক নিয়ন্ত্রণে অনন্য অবদান রাখার জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) আঞ্চলিক পরিচালকের বিশেষ স্বীকৃতি পুরস্কার পেল ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন। বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস ২০২০ উপলক্ষে শনিবার এই পুরস্কারের ঘোষণা দেয় ডব্লিউএইচও, যা সংস্থাটির ওয়েবসাইটে জানানো হয়।

রোববার ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

৩১ মে পালিত হয়ে গেল বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস। দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় ছিল- “তামাক কোম্পানির কূটচাল রুখে দাও, তামাক ও নিকোটিন থেকে তরুণদের বাঁচাও”।

তামাকের ব্যবহার প্রতিরোধমূলক মৃত্যুর অন্যতম প্রধান কারণ এবং বিশ্বব্যাপী প্রতিবছর প্রায় ৯ মিলিয়ন মানুষ মারা যাচ্ছে তামাকজনিত রোগে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলেছে, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চলে মৃত্যু প্রায় ১.৬ মিলিয়ন। কারণ, এই অঞ্চলে তামাকজাত পণ্যের উৎপাদন ও ব্যবহার সর্বাধিক।

গ্লোবাল অ্যাডাল্ট টোব্যাকো সার্ভে-২০১৭ অনুসারে বাংলাদেশে ৩৫.৩ % মানুষ তামাকজাত পণ্য ব্যবহার করছে। আর তামাকজাত পণ্য ব্যবহার ক্যান্সার, কার্ডিওভাসকুলার ডিজিজ, দীর্ঘস্থায়ী ফুসফুসের রোগ এবং ডায়বেটিসসহ বিভিন্ন অ-সংক্রমণ রোগের মূল কারণ।

তামাক কোম্পানির অন্যতম টার্গেট তরুণ সমাজ। কারণ, তরুণ সমাজকে তামাক ব্যবহারকারী হিসেবে একবার তৈরি করতে পারলে তামাক কোম্পানি দীর্ঘমেয়াদি গ্রাহক পেয়ে যায় এবং তরুণদের লক্ষ্য করেই চালাচ্ছে বিভিন্ন অপপ্রচার, প্রয়োগ করছে বিভিন্ন কূট-কৌশল। এমনকি রেহাই দিচ্ছে না শিশু-কিশোরদের।

গ্লোবাল ইয়ুথ টোব্যাকো সার্ভে-২০১৩ এ দেখা যায়: ৫২.৩% শিক্ষার্থী বিভিন্ন তামাকজাত পণ্য বিক্রয়কেন্দ্রে তামাকজাত পণ্যের প্রমোশন দেখতে পায়।

এ ছাড়া ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশন পরিচালিত একটি জরিপ বিগ টোব্যাকো টাইনি টার্গের্টে দেখা যায় যে, প্রায় ১০০% শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ১০০ মিটারের মধ্যে তামাকজাত পণ্য বিক্রি হয় এবং প্রায় ৮২% বিক্রয়কেন্দ্রে তামাকজাত পণ্য প্রদর্শিত হয় শিশুদের দৃষ্টিসীমানার মধ্যে।

সর্বাধিক পঠিত খবর










মাত্র ৫শ টাকায় করোনা টেস্ট কিট