রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৮

English Version

নার্সিং পদ বিন্যাসে অব্যবস্থাপনা: সংকট নিরসনের নির্দেশ মোহাম্মদ নাসিম

No icon হেলথ ক্রাইম

স্বাস্থ্য ডেস্ক: ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮: নার্সিং ও মিডওয়াইফারী অধিদপ্তরের পরিচালক পর্যায়ের কর্মকর্তারা যুগ্ম ও উপ সচিব পদ মর্যাদার চাকরি করে আসছেন। অথচ অবসর গ্রহণের মাধ্যমে বিদায় বেলায় নিয়ে যান সিনিয়র স্টাফ নার্স পদ। দীর্ঘদিন ধরে নার্সিং পদ বিন্যাস না হওয়ায় সিনিয়র স্টাফ নার্সরা পদোন্নতি থেকে বঞ্চিত হয়ে আসছেন। তাদেরকে নিজ বেতনে অধিদপ্তরসহ বিভিন্ন নার্সিং কলেজ, হাসপাতালে শীর্ষ পদে নিয়োগ দেয়া হচ্ছে। তারা পরিচালক, উপ-পরিচালক, সহকারী পরিচালক, অধ্যক্ষ, নার্সিং সুপারসহ বিভিন্ন কর্মকর্তার পদে দায়িত্ব পালন করলেও মূল পদ হলো সিনিয়র স্টাফ নার্স। বঞ্চিত কর্মকর্তারা অনেকটা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, যুগ্ম ও উপ সচিব পদমর্যাদা পদে দায়িত্ব পালন করে গেলাম, বিদায়ের বেলায় অবসরের যে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে সেখানে উল্লেখ আছে সিনিয়র স্টাফ নার্স। এটা আমাদের জন্য একটা ডেথ সার্টিফিকেট। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম সম্প্রতি বিষয়টি অনুধাবন করতে পেরে দ্রুত সংকট নিরসনের নির্দেশ দিয়েছেন।

জানা গেছে, নার্সিং ও মিডওয়াইফারী অধিদপ্তরে বর্তমান যেসব নার্সিং কর্মকর্তা রয়েছেন তাদের প্রত্যেকেই যোগ্যতা সম্পন্ন। অনেকে পিএইচডি ও এমপিএইচ এর মতো উচ্চতর ডিগ্রিধারী রয়েছেন। এছাড়া দেশ বিদেশে উচ্চতর প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত রয়েছেন তাদের সংখ্যা প্রায় কয়েকশ’। এরা নার্সিং অধিদপ্তরসহ কলেজ, হাসপাতালের প্রত্যেকটি পদের জন্য যোগ্যতাসম্পন্ন। তাদের অনেকের সরকারি চাকরির মেয়াদ শেষ প্রান্তে। অথচ তাদের পদে রাখা হয়েছে নিজ বেতনে। পদ বিন্যাস না হওয়ায় তাদের পদোন্নতি নেই। তাদের সিলেকশন গ্রেড দেওয়া হয়নি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার তৎকালীন মূখ্য সচিব আবুল কালাম আজাদকে বিষয়টি সুরাহা করতে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন। এরই ধারাবাহিকতায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মুখ্য সচিবের সভাপতিত্বে একাধিক বৈঠক হয়।এসব বৈঠকে নার্সিং পেশায় ১০ ক্যাটাগরির নতুন পদ সৃষ্টিরও সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এই সিদ্ধান্তের প্রেক্ষাপটে সরকারের সেবা অধিদপ্তর ১০ ক্যাটাগরির পদ সৃষ্টির জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে প্রস্তাব দেয়। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সম্মতি জানিয়ে ওই প্রস্তাব অনুমোদনের জন্য জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে পাঠায়। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সম্মতি দিয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠালে চূড়ান্ত অনুমোদন দেয় অর্থ মন্ত্রণালয়। তবে অর্থ মন্ত্রণালয় কেবল জেলা পাবলিক হেলথ নার্স ও সেবা উপ-তত্ত্বাবধায়ক এই দুটি পদ সৃষ্টির অনুমোদন দিয়েছে। বাকি আটটি ক্যাটাগরি অনুমোদন পায়নি। পরে এ বিষয়টি নিয়ে আর কোন সমাধান হয়নি।

যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে দেশের নার্সিং পেশাকে আন্তর্জাতিক মানদন্ডে নিতে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বর্তমান সরকার নার্সিং পেশার মান বাড়াতে ৮টি নার্সিং ইনস্টিটিউটকে কলেজ ঘোষণা করেছে। তবে এসব প্রতিষ্ঠানেও নতুন পদ সৃষ্টি করা হয়নি। কলেজগুলোর অধ্যক্ষ, অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক, সহকারী অধ্যাপক, লেকচারার, ইন্সট্রাকটারসহ সবাই নিজ বেতনে। আটটি কলেজে বিএসসি নার্সিং কোর্স চালু হয়েছে। এছাড়া নার্সিং সেক্টর উন্নয়নে অনেক পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।

এদিকে নার্সিং সেক্টরে পদ বিন্যাস দিতে অনেকে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। সোমবার সচিবালয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্ম নাসিম বিষয়টি নিয়ে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলেন। সব কিছু জানার পর স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বিষয়টি অমানবিক। এতদিন কেন এটার সমাধান করা হয়নি। এ সময় সেখানে উপস্থিত নার্সিং ও মিডওয়াইফারী অধিদপ্তরের মহাপরিচালক তন্দ্রা শিকদারকে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করে সংকট নিরসনের নির্দেশ দেন মোহাম্মদ নাসিম। সেখানে অন্যান্যের মধ্যে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সুভাষ চন্দ্র সরকার উপস্থিত ছিলেন।

সর্বাধিক পঠিত খবর

ধনেপাতা, এক কথায় বিপদজনক!


অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়ার পর যে খাবার খেলেই বিপদ

লন্ডনে নিপুন-পলিন ও খসরুর ‘টেস্টি ফুড’

হার্টের সমস্যায় ...

মৃতের শুক্রাণু থেকে জন্ম নিল জমজ শিশু

ক্যান্সারের কিছু লক্ষণ জেনে নিন

তিসিবীজে মাত্র সাত দিনে পেটের মেদ উধাও!

লবঙ্গ খাওয়ার উপকারিতা

মায়ের মৃত্যুর ১০ দিন পর সন্তানের জন্ম