বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯

English Version

কুড়িগ্রামে পাটেশ্বরী স্কুলের শতবর্ষ পূর্তি উদযাপন

No icon শিশু অধিকার

স্বাস্থ্য ডেস্ক: ০২ এপ্রিল’১৯: উৎসব মুখর পরিবেশের মধ্য দিয়ে ২৯ মার্চ রবিবার কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারীতে অবস্থিত ঐতিহ্যবাহী পাটেশ্বরী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শতবর্ষ পূর্তি উৎসব উদযাপন করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন।

প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন তাঁর বক্তব্যে বলেন, শিক্ষাই জাতির মেরুদন্ড। আর প্রাথমিক শিক্ষা হলো ঐ শিক্ষার মেরুদন্ড। আমি প্রাথমিক শিক্ষার একজন সামান্য সেবক হিসেবে আপনাদের সামনে এসেছি। আমি আপনাদেরই সন্তান। আমি আপনাদেরই  এলাকার একজন মানুষ। আপনারা আপনাদের সন্তান সন্তুতির প্রতি খেয়াল রাখবেন, তারা সঠিক সময় স্কুলে যায় কি না এবং শিক্ষকগন স্কুলে সঠিকভাবে পাঠদান করেন কি না।

বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু  শেখ মুজিবুর রহমানের অবদানের কথা শিকার করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, একটি দেশের স্বাধীনতার জন্য একজন মানুষ সারাজীবনের অর্ধেক সময় জেলজুলুমের শিকার হয়েছেন। শুধু তাই নয় এদেশের মানুষকে সোনার বাংলা উপহার দেয়ার জন্য নিজের বুকের তাজা রক্ত বিলিয়ে দিলেন। তারই সুযোগ্য কন্যা বলেন, আমার কোন চাওয়া পাওয়া নেই। এই বাংলার মানুষের মুখের মাঝে আমি আমার বাবা-মা, ভাই-বোনের প্রতিচ্ছবি দেখতে পাই। আমি এই দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করতে চাই। সেই সাথে সারা বিশ্বের কাছে এ দেশকে একটি উন্নত রাষ্ট্র হিসেবে পরিচয় করিয়ে দিতে চাই।

এছাড়াও অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি সংসদ সদস্য আছলাম হোসেন সওদাগর, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নূরুন্নবী চৌধুরী, তিস্তা সোলার লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম. রফিকুল ইসলাম ও ভুরুঙ্গামারী আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব শাহজাহান সিরাজসহ ঢাকা এবং স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সাবেক সিনিয়র জেল সুপার ফরমান আলী।

অনুষ্ঠানটির পরিকল্পনা ও সার্বিক তত্ত্বাবধায়নে থাকা সাবেক সিনিয়র জেল সুপার ফরমান আলী তাঁর বক্তব্যে বলেন, অনেক বাধা বিপত্তি, ঘাট প্রতিঘাত সবকিছু মিলিয়েই যেমন মানুষের জীবন, একটি অনুষ্ঠান সম্পন্ন করতে গেলেও তাই হয়। আনন্দ থাকবে, বাধা থাকবে হাসি থাকবে কান্না থাকবে। সব কিছুকে পাশ কাটিয়ে যখন একটি অনুষ্ঠান সমাপ্তির দিকে পা বাড়ায়, তখনই সাফল্য লাভ করে।  

বিদ্যালয়ের শতবর্ষ পূর্তি উৎসব অনুষ্ঠানের আলোচনা পর্বের পরপরই শুরু হয় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। চিত্রনায়ক সায়মন সাদিক, আশিক চৌধুরী, চিত্রনায়িকা আঁচল আঁখি, বিপাশা কবির, আরশি, সাদিয়া, কণ্ঠশিল্পী শাহরিয়ার রাফাত, লুবনা লিমি, রুকসার রহমান, সুরাইয়া পাপড়ী, প্রেমা ও স্থানীয় শিল্পীদের কথা, গান ও নাচে মুগ্ধ করে উপস্থিত হাজার হাজার দর্শক হৃদয়।

অনুষ্ঠানটির স্পন্সর হিসেবে ছিল তিস্তা সোলার লিমিটেড, প্রাণ-আরএফএল ও ঘরে বাজার ডটকম। মিডিয়া পাটনার দৈনিক সংবাদ প্রতিদিন, অনলাইন মিডিয়া পাটনার বাংলা প্রতিদিন ও আমারহেলথ ডটকম।

সর্বাধিক পঠিত খবর

জয়েন্টে ব্যথা বাড়ায় যে ৩ খাবার








কিডনি ভালো রাখতে করণীয়