মঙ্গলবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৮

English Version

কেনিয়ায় ওষুধ কারখানা করছে স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস

No icon ফার্মাসিউটিক্যালস

স্বাস্থ্য ডেস্ক: ১০ জানুয়ারী ২০১৮: কেনিয়ার নাইরোবিতে স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস কেনিয়া ইপিজেড লিমিটেড নামে নতুন ওষুধ কারখানার নির্মাণকাজ শুরু হয়েছে গত সোমবার । এটি স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালসের লিমিটেডের একটি সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠান। আগামী ২০২০ সালের শুরুতেই এই কারখানায় উৎপাদন শুরু হবে। এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস বাংলাদেশের ১৪টি ইউনিট থেকে প্রায় আট শতাধিক ওষুধ বাংলাদেশসহ ৪৩টি দেশে বাজারজাত করে আসছে। ১৯৮৫ সাল থেকে বাংলাদেশের বাজারে শীর্ষে থাকা এ কম্পানি বাংলাদেশের ওষুধের বার্ষিক চাহিদার এক-পঞ্চমাংশ পূরণ করে থাকে বলে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়।

স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস, ফার্মাসিউটিক্যালস খাতে বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদনপ্রাপ্ত প্রথম কম্পানি হিসেবে দেশের বাইরে প্রথম কারখানা স্থাপনা করছে। বার্ষিক ২০০ কোটি ট্যাবলেট-ক্যাপসুল ও ৬ কোটি বোতল সলিউশন উৎপাদন ক্ষমতাসম্পন্ন কেনিয়ার এ কারখানায় উৎপাদিত ওষুধ কেনিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা ও আফ্রিকার অন্যান্য দেশে বাজারজাত করা হবে।

কেনিয়ায় স্কয়ারের এই বিনিয়োগ আফ্রিকায় বাংলাদেশের রপ্তানি আয়কে সেমি ফিনিশড প্রডাক্ট, ওষুধ তৈরির আনুষঙ্গিক কাঁচামাল, টেকনোলজি ও দক্ষ জনবল রপ্তানির মাধ্যমে আরো বাড়িয়ে তুলবে।

গত সোমবার এক অনুষ্ঠানে এর সূচনা করেন কেনিয়ার শিল্প ও বাণিজ্য মন্ত্রী আদান মোহাম্মদ, কেনিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল আবুল কালাম মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির ও স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তপন চৌধুরী। কেনিয়া সরকার ও বিশ্বব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ।

সর্বাধিক পঠিত খবর

পিসিওএস ও বন্ধ্যাত্ব

মানসিক চাপ দূর হবে এক টুকরো বরফে!


রক্তচোষা জোঁকের লালায় ক্যানসার মুক্তি!





এবার ওষুধ ছাড়াই দূর হবে মাইগ্রেন !

মনের রোগে দেশের দুই কোটি মানুষ: জরিপ