amarhealth.com
১২১ শিশুকে ১২ কোটি টাকার কানে শোনার যন্ত্র বিনামূল্যে প্রদান
Sunday, 10 Jun 2018 16:30 pm
Reporter :
amarhealth.com

amarhealth.com

স্বাস্থ্য ডেস্ক: ১০ জুন ২০১৮: ১২১ শিশুকে বিনামূল্যে ১০ লাখ টাকার কানের শোনার কক্লিয়ার ইমপ্ল্যান্ট ডিভাইস দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়।  এই যন্ত্রটির মাধ্যমে শ্রবণ প্রতিবন্ধী শিশুরা কানে শুনতে ও কথা বলতে পারবেন।

শনিবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের এ-ব্লকের অডিটোরিয়ামে কক্লিয়ার ইমপ্ল্যান্ট ডিভাইস প্রদান অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মোঃ শহীদুল্লাহ সিকদার, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. সাহানা আখতার রহমান। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট বরাদ্দ কমিটির সভাপতি এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আলী আসগর মোড়ল।

অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া জানান, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যোগে বর্তমানে দেশের শ্রবণ প্রতিবন্ধী শিশুরা কানে শুনতে ও কথা বলতে পারছে। ফলে শ্রবণ প্রতিবন্ধী শিশুসহ শ্রবণ প্রতিবন্ধীরা বোঝা না থেকে দেশ ও সমাজের সম্পদ ও জনশক্তিতে পরিণত হচ্ছে।

তিনি আরো জানান, কক্লিয়ার ইমপ্ল্যান্ট সার্জারির পর শ্রবণ প্রতিবন্ধী শিশুরা যাতে আরো সুন্দরভাবে ভাষা শিখতে পারে সেজন্য অডিওলজি বিষয়ে পোস্ট গ্রাজুয়েট কোর্স চালু এবং নাক কান গলা বিভাগের চাহিদা অনুযায়ী প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগসহ সকল ক্ষেত্রে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ধরণের সহায়তা প্রদান করা হবে।

স্বাগত বক্তব্যে কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট কার্যক্রম-এর কর্মসূচী পরিচালক অধ্যাপক ডা. মোঃ আবুল হাসনাত জোয়ারদার জানান, কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট ডিভাইসের প্রতিটির মূল্য প্রায় ১০ লাখ টাকা। সে হিসাবে ১২১ শিশুর জন্য প্রায় ১২ কোটি টাকা মূল্যের কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট ডিভাইস বিনামূল্যে প্রদান করা হলো। কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট ডিভাইস প্রতিস্থাপনের অস্ত্রোপচারের খরচ ও শিশুর কথা শেখানোর জন্য স্পিচ থেরাপির খরচ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় বহন করবে।

তিনি আরো জানান, বাংলাদেশের ৯.৬ ভাগ মানুষ প্রতিবন্ধী ধরণের বধিরতা এবং ১.২ ভাগ মানুষ মারাত্মক ধরণের শ্রবণ প্রতিবন্ধিতায় ভোগেন। সম্পূর্ণ বধির শিশু, ব্যক্তি যে হিয়ারিং এইড ব্যবহার করেও কানে শুনতে পারে না-থাকে কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট সার্জারি করলে সে কানে শুনতে পারে। কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট একটি ইলেকট্রনিক যন্ত্র। চিকিৎসা বিজ্ঞানের এই বিস্ময়কর আবিস্কার শ্রবণ প্রতিবন্ধীদের জন্য এক আর্শীবাদ হিসাবে আর্বিভূত হয়েছে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে সফলভাবে কক্লিয়ার ইমপ্লান্ট সার্জারী সম্পন্ন করতে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের অটোল্যারিংগোলজি হেড এন্ড নেক সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক ডা. মোঃ আবুল হাসনাত জোয়ারদার, অধ্যাপক ডা. এ এইচ এম জহুরুল হক সাচ্চু, অধ্যাপক ডা. নাসিমা আখতার, অধ্যাপক ডা. মোঃ দেলোয়ার হোসেন, সহযোগী অধ্যাপক ডা. কানু লাল সাহা, সহযোগী অধ্যাপক ডা. অসীম কুমার বিশ্বাস, সহকারী অধ্যাপক ডা. মোঃ হারুন অর রশিদ তালুকদার ইয়ামিনসহ একটি দক্ষ চিকিৎসক টিম নিরন্তর কাজ করে যাচ্ছে।