শনিবার, ১৭ আগস্ট ২০১৯

English Version

০৮ জুন, ১৯৭১ : ১৯৭০ 'র নির্বাচনে মানুষ বঙ্গবন্ধুর আওয়ামীলীগ কে ভোট দিয়েছিল ক্ষমতায় বসানোর জন্য।

No icon স্পট লাইট

ডেস্ক রিপোর্ট: ০৮ জুন ’১৯: ফেনীতে তান্দুরা রেল স্টেশন-বেলোনিয়া নদীর তীরে মুক্তিবাহিনীর ঘাঁটিতে পাকসেনারা ব্যাপক আক্রমণ চালায়। এ আক্রমণে মুক্তিযোদ্ধারা অবস্থান ত্যাগ করে বেলোনিয়া মূল প্রতিরক্ষা ঘাঁটিতে চলে আসে। অপর দিকে পাকসেনারা আনন্দপুর পর্যন্ত এগিয়ে এসে সেখানেই দৃঢ় অবস্থান নেয়। যুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধারা ব্যাপক ক্ষতির স্বীকার হয়।

বগুড়ার জাতীয় পরিষদ সদস্য হাবিবুর রহমান এক বিবৃতির মাধ্যমে আওয়ামী লীগের সাথে সম্পর্কচ্ছেদ ঘটিয়ে বলেন, বৃটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী স্যার, আলোক ডগলাস হিউম লন্ডনে বলেন, নতুন অর্থনৈতিক সাহায্য প্রকল্পে সম্মত হবার আগে রাজনৈতিক সমাধানের জন্য বৃটেন পাকিস্তানের ওপর প্রভাব বিস্তার করতে পারে। তবে আমরা একটি স্বাধীন রাষ্ট্রের ওপর রাজনৈতিক সমাধান চাপিয়ে দিতে পারি না।

রয়েল কমওয়েলথ সোসাইটির লন্ডন হেড কোয়ার্টারে প্রদত্ত ভাষণে বাংলাদেশের প্রতিনিধি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বিচারপতি আবু সাঈদ চৌধুরী বলেন, সংবাদপত্র খুললেই আপনারা দেখতে পাবেন পূর্ব বাংলার নাগরিকরা দেশ ছেড়ে পালাচ্ছে। ভারতে গিয়ে শরণার্থী শিবিরে আশ্রয় নিচ্ছে

১৯৭০-এর ডিসেম্বরে জনগণ ভোটকেন্দ্রে গিয়েছিল রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক শোষণের কথা মনে রেখেই। তারা শেখ মুজিবুর রহমানের আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় বসানোর জন্য ভোট দেয়।

 বাংলাদেশের প্রতিনিধি বলেন, ১৬৯টির মধ্যে ১৬৭টি আসনে আওয়ামী লগের জয়লাভ করার ব্যাপার টাকে ইয়াহিয়ার মন্ত্রণাদাতারা ভালো চোখে দেখেনি।

 ভুট্টো ঘোষণা করলেন ৩ মার্চের জাতীয় পরিষদ অধিবেশন তিনি বয়কট করবেন। চাপের মুখে ইয়াহিয়া পরিষদ অধিবেশন বাতিল করলেন। শেখ মুজিবুর রহমান নিয়মতান্ত্রিকভাবে এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়ে হরতালের কর্মসূচি দিলেন। পূর্ব বাংলার সমগ্র জনগোষ্ঠী তাঁর আন্দোলনের সাথে যোগ দিল।

সর্বাধিক পঠিত খবর






হুমায়ূন আহমেদের মৃত্যুবার্ষিকী আজ




৭ ঘণ্টার কম ঘুম আর নয়!