সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮

English Version

সরিষার তেলের জুড়ি নেই চুলের যত্নে

No icon হেলথ টিপস

স্বাস্থ্য ডেস্ক: ৮ নভেম্বর ১৮: যুগ বদলের সাথে সাথে এখনকার দিনের নারীরা চুলের যত্নে নারিকেল তেল বেছে নিয়েছেন। অথচ দূষণ, পানি, রাসায়নিক ইত্যাদির প্রভাবে আমাদের চুল রুক্ষ, শুষ্ক হয়ে যাওয়া থেকে রক্ষা ও চুল পড়া বন্ধ করায় যে সরিষার তেলের জুড়ি নেই তা অনেকেই জানেন না।

 চুলের উপকারে সরিষার তেলের কিছু ব্যবহার:

১. প্রাকৃতিক কন্ডিশনার: সরিষার তেলে আলফা ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে যা চুল সুন্দর, স্বাস্থ্যজ্বল রাখে। এছাড়া আলফা ফ্যাটি অ্যাসিড দারুণ কন্ডিশনারের কাজ করে। ফলে চুল দ্রুত বৃদ্ধি হয়।

২. পুষ্টি জোগায়: আজকাল চুল পড়া খুবই সাধারণ সমস্যা। এর একটি কারণ হতে পারে চুলের ফলিকল দুর্বল হয়ে নষ্ট হয়ে যাওয়া। চুলে নিয়মিত সরিষার তেল মালিশ করলে ফলিকল মজবুত হয়ে চুল পড়া বন্ধ হবে। 

৩. ভিটামিন, মিনারেল ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ: সরিষার তেলে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, আয়রন, ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম ইত্যাদি মিনারেল এবং ভিটামিন এ, ডি, ই ও কে থাকে। এছাড়াও থাকে জিঙ্ক, বিটা ক্যারোটিন ও সেলেনিয়াম যা চুল লম্বা হতে সাহায্য করে।  

৪. রক্তসঞ্চালন বৃদ্ধি করে: আপনার চুল রুক্ষ, শুষ্ক, নিষ্প্রাণ হয়ে গেলে নিয়মিত মাথার তালুতে সরিষার তেল মালিশ করুন। এর ফলে মাথার তালুতে রক্ত সঞ্চালন ঠিকভাবে হবে এবং চুলের গোড়া মজবুত হয়ে চুল পড়া বন্ধ হবে।

৫. চুল বড় হতে সাহায্য করে: সরিষার তেলে ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে যা চুল বড় হতে সাহায্য করে।

৬. অ্যান্টি ফাঙ্গাল উপাদান বর্তমান: সরিষার তেলে অ্যান্টি ফাঙ্গাল উপাদান থাকায় তা চুলের খুশকি ও চুলকানি দূর করে। ফাঙ্গাসে চুলের গোড়া বুজে গিয়ে চুল পাতলা হয়ে যায়। সে সমস্যা সমাধান করে সরিষার তেল।

বড় চুল পেতে সরিষার তেলের ব্যবহার:

১. দই ও সরসের তেলের মিশ্রণ: টক দইয়ের সঙ্গে সরিষার তেল মিশিয়ে মাথার তালুতে ভালভাবে লাগান। তোয়ালে গরম জলে ভিজিয়ে মাথায় পেঁচিয়ে রাখুন। ৩০-৪০ মিনিট পর মৃদু শ্যাম্পু দিয়ে ভালভাবে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে একবার বা দু'বার প্রায় একমাস ধরে এই পদ্ধতি অবলম্বন করুন আর ফলাফল দেখুন!

২. সরিষার তেল ও অ্যালোভেরার মিশ্রণ: একটা পাত্রে সরিষার তেল ও অ্যালোভেরা মেশান। মাথার তালুতে ভালভাবে মিশিয়ে ৩০ থেকে ৪০ মিনিট রেখে দিন। তারপর মৃদু শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ভাল ফল পেতে সপ্তাহে দুই দিন এই পদ্ধতি অবলম্বন করুন। এই মিশ্রণ আপনার চুল মসৃণ ও স্বাস্থ্যজ্বল করবে ও চুল পড়া বন্ধ করবে।

৩. লেবুর রস ও সরিষার তেলের মিশ্রণ: একটা বাটিতে সরিষার তেল, লেবুর রস ও ধনে গুঁড়ো নিয়ে ভালভাবে মেশান। মাস্ক হিসাবে চুলে নিয়মিত মাখুন। আধা ঘণ্টা রেখে মৃদু শ্যাম্পু সহযোগে ধুয়ে ফেলুন। এর ফলে চুল কন্ডিশন হবে, মজবুত হবে এবং খুশকি দূর হয়ে চুলের আর্দ্রতা বজায় থাকবে।

৪. কলা ও সরিষার তেলের মিশ্রণ: একটা পাকা কলা নিয়ে চটকে নিন। সরিষার তেল ও দই মেশান। মিশ্রণটা ভালভাবে মাথার তালুতে লাগান এবং আধা ঘণ্টা পর সাধারণ শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে চুলে কন্ডিশনার লাগিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এরপর হেয়ার ড্রায়ার ব্যবহার করবেন না। এই মিশ্রণটা আপনার চুল মসৃণ, উজ্জ্বল, মজবুত ও নরম করে তুলবে।

সর্বাধিক পঠিত খবর

কিডনি ইনফেকশন প্রতিরোধের উপায়

বুদ্ধিমান সন্তান চেনার উপায়?

মেদ কমান, সুস্থ থাকুন


থাইরয়েডের সমস্যায় যে খাবার খাবেন




চুলের বৃদ্ধি বাড়ায় আদা ও রসুন

শীতে শ্বাসকষ্ট এড়াতে যা যা করবেন